মন্ত্রগুরু এ্যসোসিয়েশন

We have three departments for training in our organization. Please call or mail for more information

আমাদের প্রতিষ্ঠানে তিনটি বিভাগে 
প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়ে থাকে >>

প্রথম প্রর্যায়ঃ সাবলীল তন্ত্র 

এটি শুধুমাত্র সেই সকল তান্ত্রিকদের জন্য যারা চলমান তান্ত্রিকতার কাজ করে আসছেন, তাদের জ্ঞ্যান ভান্ডার আরো সমৃদ্ধ করার প্রয়াশেই আমাদের এই কোর্স। এটি কোন ভাবেই সাধারনদের জন্য নয়, যারা তান্ত্রিকতায় নতুন তেনাদের জন্য অবশ্যই গুরু নির্ধারন ও মন্ত্র চৈতন্য দোওয়া তাবিজের এজাজত ইত্যাদি জানতে “গুরু সিদ্ধ” কোর্স করতে হবে।


প্রশিক্ষণ ফি বা গুরু দক্ষিণা = ৯,৯৯৯/- টাকা।
এই ধাপে ব্যবহারিক জীবনে বহুল ব্যবহৃত ৯৯ টি
দোওয়া/মন্ত্র/তন্ত্র/টোটকা শেখানো হয়।।
এবং সমস্ত কিছু কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়।।

দ্বিতীয় প্রর্যায়ঃ গুরু সিদ্ধ 

একজন নতুন তান্ত্রিকের জন্য শুধু মাত্র এই কোর্সটি সম্পন্য করলেই তিনি তান্ত্রিকতার সকল গোপন বিষয় অবগত হতে পারবেন, এবং একজন গুরুর অনুমতি প্রাপ্ত হবেন, এরপর তিনি চাইলে যে কোন তান্ত্রিক কার্য নিজে থেকেই সম্পন্য করতে পারবেন।

প্রশিক্ষণ ফি বা গুরু দক্ষিণা = ২৯,৯৯৯/- টাকা।
এই ধাপে ব্যবহারিক জীবনে বহুল ব্যবহৃত ২৯৯ টি
অত্যন্ত গোপন দোওয়া/মন্ত্র/তন্ত্র/টোটকা শেখানো হয়।।
এবং সমস্ত কিছু কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়।
ত্রাটক সর্ম্পকে সাধারন ধারনা দেওয়া হয় এবং
দোওয়া/মন্ত্র/তন্ত্র/টোটকা কি ভাবে কাজ করে
তার গোপন সমস্ত তথ্য দেওয়া হয়।।

তৃত্বীয় প্রর্যায়ঃ ত্রাটক সাধনা 

আমাদের সর্ব্বচ্য ও সর্বশ্রেষ্ঠ কোর্স এটি এখানে একজন সামান্য মানুষও তার স্বীয় আত্বশক্তি বলে একজন মহামানবে পরিনত হতে পারে, তার সকল চাওয়া সকল স্বপ্ন সে অনায়েসে পূরন করতে পারে, যে কোন মানুষ তার সমস্যা ও বিপদ-আপদ, বালা মুছিব্বত সমস্ত কিছু নিজে থেকেই দুরিভুত করতে সক্ষমতা অর্জন করতে পারে। জীবনে চলার পথে যে কোন ধরনের সমস্যাতে এর ব্যবহার অপরিসীম।

প্রশিক্ষণ ফি বা গুরু দক্ষিণা = ৬৯,৯৯৯/- টাকা।

এই ধাপে ত্রাটক সর্ম্পকে একজন ছাত্রকে সর্ম্পূন প্রশিক্ষন দেওয়া হয়।
সম্মোহন, মেশমেরিজম, টেলিপ্যাথি, আত্নসম্মোহন, হিপনোটাইজম,
অটোশাজেশন, মেডিটেশন, সর্বপরি তাকে ত্রাটক সম্পর্কিয়
সমস্ত বিষয় প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।।
যা কিনা সমস্ত তন্ত্র, মন্ত্র, দোওয়া, তাবিজাতের অনেক
অনেক উপরের বিষয়।।
************<<<=>>>************

ইহা ছাড়াও আপনারা যদি শুধুমাত্র একটি কাজের বা কোন সাধনার জন্য আমাদের ফরমায়েস দেন, তবে তার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষিণা প্রদান করতে হবে। সাধারনত আমরা জানী কোন বস্তু পেতে হলে তার মূল্য প্রদান করতে হয়, সেটা হোক অর্থঃ, শ্রম, মনঃ বা অন্য কোন বস্তুর মাধ্যমে। দোওয়া মন্ত্র বা তন্ত্রে কোন কাজ করতে হলেও তেমনি কিছু দক্ষিণা প্রদান করতে হয় যাকে হাদিয়াও বলতে পারেন। এটি সম্পূর্ণ পারিশ্রমীক নয়, এর কিছু দিতে হয় যাকাত হিসেবে অর্থাৎ মন্ত্রের দক্ষিনা, কিছু দিতে হয় মন্ত্রে ব্যবহৃত উপকরণ ক্রয় বাবদ, কিছু দিতে হয় সাধারন সদগার জন্য এমনি ভবেই এর মূল্য বন্টন করা হয়।।